কার্বন শোষণের চেয়ে নির্গমন বেশি, আমাজনের শেষের শুরু?

পৃথিবীর ২০ শতাংশ অক্সিজেনই সরবরাহ করে থাকে ল্যাটিন আমেরিকার আমাজন। সেইসঙ্গে বিশ্বের সর্ববৃহৎ কার্বনের সিঙ্কও এই ক্রান্তীয় অরণ্য। আর সে জন্যই বিজ্ঞানীদের কাছে তার পরিচয় পৃথিবীর ফুসফুস হিসাবেই। তবে বিগত চার দশক ধরেই সভ্যতার রোষে ক্রমশ ক্ষতবিক্ষত হয়ে চলেছে আমাজন। এবার হাতে-নাতে ফলাফল মিলল তার। আমাজনের কার্বন নির্গমনের পরিমাণ সম্প্রতি ছাপিয়ে গেল কার্বন শোষণের মাত্রা। সম্প্রতি এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে আনল ব্রাজিলের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর স্পেস রিসার্চের গবেষণা। 

বিগত ৯ বছর ধরে ছোট বিমান এবং স্যাটেলাইটের মাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করেছিল ব্রাজিলের মহাকাশ সংস্থা। সংগ্রহ করা হয়, ভূপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৪৫০০ মিটার উচ্চতার বায়ুস্তরের নমুনাও। সেই নমুনা ও তথ্যের বিশ্লেষণের ওপর ভিত্তি করেই সম্প্রতি প্রকাশিত হয় সমীক্ষার চূড়ান্ত ফলাফল। আর তাতেই উঠে আসে এই চাঞ্চল্যকর তথ্য। গবেষকরা জানাচ্ছেন, ২০১০ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত এই ন’বছরে মোট ১৫০ কোটি টন কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গত হয়েছে আমাজন থেকে। সেই তুলনায় শোষিত হয়েছে মাত্র ৫০ কোটি টন কার্বন। অর্থাৎ, বিগত এক দশকে প্রকৃতিতে প্রায় ১ বিলিয়ন টন কার্বন সংযোজন করেছে আমাজন। দু’দশক আগেও ছবিটা ছিল পুরো উল্টো। তবে হঠাৎ এই চরিত্র বদলের কারণ কী?

প্রতি মিনিটে দুটি ফুটবল মাঠের আয়তনের সমান অরণ্য লোপ পাচ্ছে ব্রাজিলের আমাজন থেকে। কয়েকমাস আগেই প্রকাশিত একটি গবেষণা জানিয়েছিল এমন তথ্য। তবে এই ছবি শুধু ব্রাজিলের নয়; ইকুয়েডর, পেরু, বলিভিয়া, কলোম্বিয়া, ভেনেজুয়ালা-সহ গোটা ল্যাটিন আমেরিকাতেই একই অবস্থা আমাজনের। দ্রুত বেড়ে চলেছে বৃক্ষচ্ছেদন। সেইসঙ্গে বছর ঘুরলে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা তো লেগেই রয়েছে। শুধু ২০১৯ সালের কথাই যদি ধরা যায়, তাহলে দেখা যাবে ওই বছর ৭২টি ভয়ঙ্কর দাবানলের শিকার হয়েছিল আমাজন। 

গোটা বিশ্বজুড়েই পরিবেশকর্মীরা সরব হয়েছেন আমাজনের বৃক্ষচ্ছেদনের ব্যাপারে। তবে এতকিছুর পরেও ন্যূনতম পরিবর্তন আসেনি বাস্তব পরিস্থিতিতে। বরং এই ক্ষয় ক্যানসারের মতোই বেড়ে চলেছে পৃথিবীর ফুসফুসে। 

আরও পড়ুন
প্রযুক্তিকে হাতিয়ার করেই বৃক্ষচ্ছেদন রুখছেন আমাজনের আদিবাসীরা

বর্তমানে গোটা বিশ্বের কাছে ত্রাস হয়ে দাঁড়িয়েছে জলবায়ু পরিবর্তন। এক কথায় কোনোভাবেই যে মুক্তি নেই তার থেকে, তা বহু আগেই জানিয়ে দিয়েছেন গবেষকরা। এমনকি জলবায়ু পরিবর্তনই ষষ্ঠ গণ-অবলুপ্তির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে, সেই সতর্ক বার্তাও দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। পরিবেশের এই ক্ষতিকর পরিবর্তনের গতি একমাত্র কমিয়ে আনার একমাত্র হাতিয়ার ছিল আমাজন। মানুষের কার্যক্রমে এবার বুমেরাং হয়ে সভ্যতার ওপরেই যেন প্রত্যাঘাত আনল সেই হাতিয়ার…

আরও পড়ুন
আমাজন কেটে দীর্ঘতম মহাসড়ক নির্মাণ ব্রাজিলে, অনুমোদন আদালতের

Powered by Froala Editor

আরও পড়ুন
১.২ লক্ষ হেক্টর আমাজন অরণ্য ধ্বংস কলম্বিয়ায়, রয়েছে সরকারি ছাড়পত্রও!